কাশফুল

কাশফুলের রূপকথা...(১)

4:48 AM

...কিন্তু আজকাল কী যে হয়েছে আমার । আমিও কেমন যেন
তাদের মতো হয়ে যাচ্ছি । ভুলে যাচ্ছি আমার গ্রামটিকে ,
আমাকে জন্ম দেবার জন্যেই একদিন যার জন্ম হয়েছিল ।
মাথায় নিয়ে তো দূরের কথা , আজকাল কোমরে জড়িয়েও
আর নৃত্য করি না । আমাকে টেনেছে এই নগর তটিনী ।
অথচ নিশ্চিত জানি কাশবন এখনো আমার অপেক্ষায় বসে
অনিদ্র প্রহর গোনে বেহুলার মতো , এই তার একমাত্র কাজ ।


...বুঝতে পারি, আমরা কাশবনের মধ্যে ইচ্ছে করেই হারিয়ে গেছি। এই হচ্ছে শরতের খেলা। কাশবন ডেকে নিয়ে গিয়ে ফেরার পথ ভুল করে দেয়। অনিন্দিতা বলল, ‘ফিরবে না?


...কোনটা আকাশ কোনটাবা নদী বোঝার আগেই
হিমে সাদা তুষারে বরফে ভরে উঠেছে আমার চোখ ,
তুমি কলপ না দিয়ে চুলে ভালোই করেছো।
আমি জানি , আকাশটা কেবল ছেলেবেলার রূপকথা
কিন্তু মেঘগুলি আকাশের সাদা কাশফুল।


...তারপর, একে একে সবকিছু-সেই মেঘ, সেই বৃষ্টি, সেই কাশবন, সেই শিউলি ফুল সব উঠে আসবে, ফুটে থাকবে একটি তরুণ কবিতায়।
যেমন , আমার খাতার মধ্যে সেরকম কবিতারা কাশফুল হয়ে আছে, মেঘ হয়ে আছে, শারদীয়া বিসর্জনের অশ্রু হয়ে আছে। যে পড়ার, সে পড়বে। যে দেখার, সে দেখবে। যে বোঝার, সে বুঝবে।
অমৃতস্য ভবলীলা।

 
...আকাশে বাতাসে শরতের ছোঁয়া, রোদ্দুরে যাদু, এর ভিতরে কান পাতি,
অনেক দূরের আমার শৈশবের প্রান্ত থেকে ভেসে আসে ঢাকের শব্দ, ডিং ডিডিং ডিডিং ডং। 
ঢাকীরা নানা রঙের পালক আর শুভ্র কাশফুল দিয়ে সাজ পরাতো ঢাকের। 
এখনও হয়তো পরায়।


কৃতজ্ঞতাঃ মহাদেব সাহা, নির্মলেন্দু গুন, টোকন ঠাকুর।

*আমার এই ব্লগে ব্যবহৃত সব কবিতা, পংক্তির অল্প কিছু আমার নিজের, বেশীরভাগই বিভিন্ন কমিউনিটি ব্লগ এবং ব্যক্তিগত ব্লগ থেকে সংগ্রহীত। সবার নাম মনে থাকে না বলে আলাদাভাবে কাউকে ধন্যবাদ দিচ্ছি না। আপনাদের সবার কাছে আমি কৃতজ্ঞ।

You Might Also Like

8 comments

SUBSCRIBE

Like us on Facebook